25.5 C
Moulvibazar
রবিবার, মে ২২, ২০২২

কমলগঞ্জে পরকীয়ার টানে ঘর ছাড়লেন ৩ সন্তানের জননী

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলায় প্রেমের টানে সন্তানসহ স্বামীর ঘর ছেড়েছেন ৩ সন্তানের জননী ডলি বেগম(৩৫)। সে কমলগঞ্জ উপজেলার ৭নং আদমপুর ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের সুলেমান মিয়া (৩৮) এর স্ত্রী। এ বিষয়ে কমলগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন স্বামী সুলেমান মিয়া।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সুলেমান মিয়া একজন দিনমজুর। পাহাড়ের বাঁশ কেটে সংগ্রহ করেন এবং সেই বাঁশগুলো স্থানীয় বাজারে বিক্রয় করে নিজের স্ত্রী সন্তান নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। কাজের জন্যে বেশিরভাগ সময়ে বাড়ির বাইরে অবস্থান করার সুযোগে তার স্ত্রী ডলি বেগমের সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে উঠে স্থানীয় হুন্ডী ব্যবসায়ী সেলিম মিয়া(৩৫) এর সাথে। সে একই ইউনিয়নের মধ্যভাগ এলাকার রইছ মিয়ার ছেলে।

অবৈধ সম্পর্কের জের ধরে স্বামী সুলেমান মিয়ার সাথে ঝগড়া করে স্ত্রী ডলি বেগম আলীনগর ইউনিয়নস্থ চিৎলীয়া গ্রামে নিজের বাবার বাড়িতে চলে যান।

সুলেমান মিয়া জানান, গত ২০ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল বেলা চিৎলীয়া গ্রামের শ্বশুর বাড়ি থেকে স্ত্রী সন্তানকে আনতে চাইলে শ্বশুর-শ্বাশুড়ী রাগান্বিত হয়ে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করেন এমনকি মারার জন্যে তেড়ে আসলে উপস্থিত জহুর আলী, মুসলিম মিয়া এবং আনোয়ার মিয়াসহ কয়েকজন লোক এগিয়ে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

স্বামী সুলেমান মিয়া আরো জানান- বিবাহের প্রায় ১৭ বছর অতিবাহিত হয়েছে। উনার দুই ছেলে এবং এক কন্যা সন্তান রয়েছে। বিবাহের পর থেকেই স্ত্রী ডলি বেগম তার বাড়িতে থাকতে ইচ্ছুক নয়, সে বেশিরভাগ সময়ই তাহার বাবার বাড়িতে থাকতো। বাড়িতে আসতে বললে অপারগতা প্রকাশ করতো। পরবর্তীতে তিনি জানতে পারেন স্ত্রী ডলির সাথে সেলিম মিয়ার অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন, সেলিম মিয়া স্ত্রী ডলি বেগমকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে।

তিনি আরো বলেন, পরকীয়ার বিষয়টি শ্বশুর-শ্বাশুড়ীকে অবগত করলে তারা বিষয়টি কর্ণপাত না করে উলটো তাকে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করে এমনকি প্রাণে হত্যার ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছেন। তিনি এই বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান আমাদের।

এই বিষয়ে সদ্য নির্বাচিত স্থানীয় ইউপি সদস্য মনির আলী কে জীজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন- অভিযুক্ত সেলিম মিয়া একজন হুন্ডী ব্যবসায়ী এবং সমাজের বিভিন্ন অপরাধ মুলক কাজে নিয়োজিত থাকার অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর থেকে। ভুক্তভোগী সুলেমান মিয়া উনার সাথে ঘটে যাওয়া বিষয়টি জানালে তাকে আইনের দারস্থ হতে সুপারিশ করি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সেলিম মিয়ার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে উনাকে ফোনে পাওয়া যায় নি।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ইয়ারদৌস হাসান জানান- আমরা একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এই বিভাগের আরও খবর

জুরুরি নোটিশ

দৈনিক মৌলভীবাজার এক্সপ্রেস এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক রাখার চেষ্টা করা হয়। যদি কোন সংবাদকর্মী অথবা সংবাদ সরবরাহকারী কেউ অন্য কোন ওয়েবসাইট থেকে কোন নিউজ কপি করেন এবং তা প্রমাণিত হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা

1,515FansLike
223FollowersFollow
300FollowersFollow
0SubscribersSubscribe

সব খবর